রোবট কি? রোবট তৈরির কৌশল

রোবট শব্দের অর্থ হচ্ছে যন্ত্রমানব। রোবট একটি ইলেক্ট্রনিক যান্ত্রিক ব্যবস্থা, যার চলাফেরা কাজকর্ম প্রায় মানুষের মতোই। সাধারণত রোবট কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র যা মানুষের কঠিন এবং দুংসাধ্য কাজ করতে সক্ষম। রোবটের কাজকর্ম দেখে মনে হবে যে এর কৃতিম বুদ্ধিমত্তা আছে। মানুষ যেভাবে কাজ করে রোবট ও সেই ভাবে কাজ করতে পারে। বিভিন্ন কাজে মানুষের বিকল্প হিসেবে রোবট ব্যবহৃত হচ্ছে।

রোবটের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

রোবট শব্দটির উৎপত্তি চেক শব্দ “রোবোটা” থেকে, যার অর্থ হল ফোরসড লেবার বা একঘেয়েমি খাটুনি কিংবা পরিশ্রম করতে পারে বা মানুষের দাসত্ব করতে পারে এমন যন্ত্র। রোবট এর বহুমাত্রিক সংজ্ঞা দেওয়া সম্ভব। এক কথায় সহজ ভাষায় বলা যায় যে, যে যন্ত্র নিজে নিজে নানাবিধ কাজকর্মে মানুষের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার হয় বা মানুষের কাজে সাহায্য করে তাই রোবট। 
বিশ্বের প্রথম প্রোগ্রামেবল রোবট হচ্ছে ইউনিমেট। জর্জ ডিভোল ১৯৫৪ সালে পৃথিবীর প্রথম ডিজিটাল প্রোগ্রামেবল রোবট তৈরী করেন।

রোবট কোন অংশবিশেষ প্রদর্শণ করে তা নিম্নে দেয়া হলো:

  • রোবট কৃতিম, প্রাকৃতিক নয়।
  • রোবটের পরিবেশ অনুভব করার মতো ক্ষমতা রয়েছে।
  • কিছুটা বুদ্ধিমত্তা রয়েছে, যার সহায়তায় পরিবেশ বুঝে রোবট সিদ্ধান্ত নিতে পারে।
  • রোবট দক্ষভাবে ও সুনিয়ন্ত্রিত প্রদর্শন করতে পারে এই যান্ত্রিক যন্ত্রটি।
  • রোবট স্থানান্তর ও ঘুরতে পারে।
  • রোবট পরিবেশের বস্তু নিয়ে কাজকর্ম করতে পারে।
  • এই যন্ত্র সেচ্ছায় কাজ করছে, এমন আভাস ও দিতে পারে।
  • যন্ত্রটি Computer মাধ্যমে  Program যোগ্য।

রোবটের ইতিহাস বিশাল। বিশ্ব জুড়ে সংস্কৃতির পৌরাণিক স্বয়ংক্রিয় বস্তু সম্পর্কে অনেক ধারণা দেওয়া রয়েছে। প্রাচীন গ্রীস, চীন এবং টলিমেক মিশরের প্রকৌশলীরা স্বয়ংক্রিয় মেশিন তৈরির চেষ্টা করেছিলেন। আর সেগুলো ছিল অনেকটা অনুরূপ মানুষের মতো। শুরুর দিকে স্বয়ংক্রিয় বস্তুর মধ্যে যেগুলোর বিবরণ পাওয়া যায় তার মধ্যে কৃতিম মোজি, Lu Ban পাখি এবং কৃতিম ঘুঘু। এছাড়া প্রথম স্বয়ংক্রিয়ভাবে কথা বলতে সক্ষম হয় আলেকজান্দ্রিয়ার hero, মানব লি.জী এবং Washstand নামে বাইজেন্টিয়ামের ফিলো অন্যতম।
রেনেসাঁ কালীণ ইতালিতে, লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি (১৪২৫-১৫১৯) ১৪৯৫ সালের কাছাকাছি হিউম্যানোয়েড একটি রোবটের পরিকল্পনা করেছিলেন।

১৯২১ সালে রোবট প্রথম আবিষ্কার করেন “কারেল কাপেক” (Karel Capek)। বিংশ শতাব্দীতে সর্বপ্রথম Computer ব্রেনকে কাজে লাগিয়ে কম্পিউটার বিজ্ঞানীরা রোবট নির্মাণ করার পরিকল্পনা করেন। বিশ্বের প্রথম Programmable Robot  হচ্ছে “ইউনিমেট”। জর্জ ডেভেল ১৯৫৪ সালে পৃধিবীর প্রথম Programmable ও Digital রোবট আবিষ্কার করেন এবং ইউনিমেট (Unimate) নাম তিনিই দেন। এই ইউনিমেটকে জেনারেল মোটস নামের একটি কোম্পানীর কাছে  বিক্রি করে দেওয়া হয় ১৯৬১ সালে।

রোবট তৈরির উপাদান

রোবট শব্দটি এসেছে মূলত স্লাভিক শব্দ রোবোটা থেকে যার অর্থ হলো রোবট। রোবট এমন এক ধরনের মেশিন যা পরিবেশের পরিবর্তনের সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারে এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে কাজ করতে পারে। এই যান্ত্রিক মেশিনের মেমোরিতে যা কর্ম বা ক্রিয়া দেওয়া হয়ে থাকে তার বাইরে কোন কাজ করতে পারে না। 

রোবটের ৫টি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান নিম্নে দেয়া হলো:

  • পাওয়ার সিস্টেম (Power system)
  • অ্যাকচুয়েটর (Actuator)
  • প্রসেসর বা মস্তিষ্ক (Processor)
  • ম্যানিপুলেশন (Manipulation)
  • অনুভূতি (Sensing)

পাওয়ার সিস্টেম: একটি রোবট তার কাজকর্ম করার জন্য অবশ্যই বিদ্যুৎ শক্তির প্রয়োজন তাই লেড এসিড দিয়ে তৈরী উন্নত মানের Battery দ্বারা রোবটের Power দেয়া হয়। এটি রিচার্জেবল ব্যটারি হওয়ায় পুনরায় চার্জ করা যায়।

অ্যাকচুয়েটর: অ্যাকচুয়েটর হলো রোটের হাত-পা শরীরের অঙ্গ-প্রতঙ্গ নাড়চাড়া করার জন্য বেশ কিছু বৈদ্যুতিক মোটরের সমন্বয়ে তৈরি বিশেষ ব্যবস্থা। রোবটের শরীরের অভ্যন্তরে অ্যাকচুয়েটর নামে ছোট ছোট কতগুলো মোটর রয়েছে। যে গুলো দিয়ে রোবটের হাত-পা এবং সম্পূর্ণ শরীরের অঙ্গ-প্রতঙ্গ নড়াচড়া করতে পারে। যে মোটরস গুলো রোবটের অভ্যন্তরে ব্যবহৃত হয় সেগুলো হচ্ছে সার্ভো মোটরস, ডিসি মোটরস, স্টিপার মোটরস ইত্যাদি।

প্রসেসর বা মস্তিষ্ক: রোবটের কৃত্রিমবুদ্ধিমাত্তার জন্য একাধিক প্রসেসর ব্যবহার করা হয়। পাশাপাশি রোবটকে সবসময় নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। এটি হচ্ছে রোবটের প্রধান নিয়ন্ত্রক সিস্টেম। রোবটের অভ্যন্তরে উপস্থিত প্রত্যেকটি ব্যবস্থা ও কার্যকারিতা নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা হিসেবে কাজ করে থাকে। রোবট এমন একটি যন্ত্রমানব যে আপনি যে প্রোগ্রাম রোবটের প্রসেসরে দিবেন রোবট ঠিক সেইভাবে কাজ করবে।

ম্যানিপুলেশন: ম্যানিপুলেশন শব্দের অর্থ হলো কোন কৃত্রিম হাত/পা কে দক্ষতার সাথে পরিচালনা করা। এটি শব্দটি বিশেষ করে রোবট এর ক্ষেত্রে ব্যবহার হয়। এটি মুলত রোবট এর চলাফেরা, কোন বস্তুর অবস্থান পরিবর্তন করানোর দক্ষতা কে বুঝানো হয়।

অনুভূতি: রোবটের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে অনুভূতি বা সেন্স। সেন্সের দ্বারা রোবটেও মানুষের মতো অনুভূতি তৈরি করা যায়। রোবট তার অনুভূতি দ্বারা পরিবেশ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে থাকে এবং এই তথ্য রোবটের আচরণকে প্রকাশে সাহয্য করে। এজন্য সেন্সর রোবট এর একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। মানুষের চোখের মতোই রোবটের ক্যামেরার মাধ্যমে সামনে বা পিছনের দৃশ্য দেখে।

কম তেলে বেশি চলা ৬টি মোটরসাইকেল

রোবট তৈরির কৌশল

বিশ্বের সমস্ত উন্নত দেশ গুলো আজ প্রযুক্তিতে অনেকটা এগিয়ে রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ এখনো প্রযুক্তির দিক থেকে অনেকটা পিছিয়ে রয়েছে। তাই আর পিছিয়ে না থেকে চলুন এইবার প্রযুক্তিতে সামনে এগিয়ে যাওয়া যাক।

বর্তমানে সব থেকে আলোচিত প্রযুক্তি হচ্ছে রোবট। আর এই যন্ত্রমানব রোবট ব্যবহৃত হচ্ছে মহাশূণ্যে, যুদ্ধে এমনকি উদ্ধারকাজেও। যারা এই যন্ত্রমানব ব্যবহার করছে তারা বাংলাদেশের তুলনায় অনেক এগিয়ে রয়েছে। আফগানিস্তান এবং ইরাক যুদ্ধে এই যন্ত্রমানব রোবট প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য ন্যাটো বাহিনী ও মার্কিন দেশ দুটিকে খুব সহজেই দখল করতে পেরছে। রোবটি সামনে থাকা যেকোন প্রকার বাধা সয়ংক্রিয়ভাবে  নির্ণয় করতে পারে এবং সেই বাধা অতিক্রম করে রোবট এগিয়ে যেতে পারে। বর্তমানে বিভিন্ন শিল্প কারখানাতে রোবট ব্যবহার করে উৎপাদন বৃদ্ধি ও উৎপাদন খরচ কমানো হচ্ছে। 

এছাড়া মাইক্রো-প্রোসেসর তৈরীর কাজেও রোবট ব্যবহার হচ্ছে।

রোবট তৈরি করতে যেসব যন্ত্রপাতির প্রয়োজন

  • Arduino
  • Jumper Wire
  • Beadboard
  • মোটর ড্রাইভার বোর্ড
  • রোবটের চাকা
  • রোবটের বডি
  • ড্রিল মেশিন
  • রাডার সেন্সর
  • গিয়ার মোটরস
  • স্ক্রু
  • স্ক্রু ড্রাইভার
  • পাওয়ার জ্যাক
  • Soldering iron ও লিড
  • ৬-৭ ভোল্ট এর লিথিয়াম ব্যাটারী।
  • রোবট পরিচালনা করার প্রোগ্রাম

সব প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি গুলো বিভিন্ন রোবটিক্স শপ থেকে সহজেই সংগ্রহ করতে পারেন।

প্রথম ধাপ রোবটের বডি

যন্ত্রমানব রোবটের বডি তৈরি করতে প্রথমে দুটি হার্ড বোর্ড প্রয়োজন সেটি যেকোন হার্ডওয়্যারের দোকানে এই হার্ড বোর্ড কিনতে পাওয়া যাবে।
এটাকে যে রোবট তৈরী করতে চাচ্ছেন তার গঠন বা ডিজাইন অনুয়ায়ী কেটে নিয়ে রোবট এর বডি তৈরী করতে হবে।

দ্বিতীয় ধাপ (ইলেকট্রিক কানেকশন)

ইলেকট্রনিক্স System এ আমরা Atmel যেকোন Arduino board  ব্যবহার করবো এবং যন্ত্রমানব রোবটের গিয়ার মোটর চালাতে মোটর Driver board ব্যবহার করবো।

মোটর ও মোটর ড্রাইভার কানেকশন

জাম্বার ওয়ার দিয়ে সকল মোটরকে নির্দিষ্ট মোটর ড্রাইভারের সাথে কানেক্ট করে নিতে হবে। কানেকশন টা যাতে ভালো হয় সেজন্য সোল্ডারিং আয়রন দিয়ে সোল্ডারিং করে নেয়া ভালো।

ব্যাটারী কানেকশন এবং পাওয়ার সিস্টেম

প্রায় সকল রোবটের জন্য ৬ থেকে ৮ ভোল্ট এর লিথিয়াম ব্যাটারী সবচেয়ে উপযুক্ত। ব্যাটারী ও মোটর Driver কানেকশন তার দ্বারা দিতে হবে।  মোটর এর কানেকশনের ধরন অনুযায়ী কানেকশন সম্পন্ন করতে হবে।

তৃতীয় ধাপ (প্রোগ্রামিং)

রোবট পরিচালনার জন্য বা পরিক্ষামূলকভাবে রোবট তৈরীর জন্য সব থেকে বেশি ব্যবহার করা হয় Arduino 
Arduino একটি মাইক্রো প্রোসেসর। যাকে খুব সহজেই রোবটিক্স এর জন্য প্রোগ্রামেবল করা যায়। এছাড়া এর অনেক রেডি প্রোগ্রাম পাওয়া যায়। যেগুলো ব্যবহার করে রোবট তৈরী করা যায়।

চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

রোবট সোফিয়া

সোফিয়া মানুষের মত দেখতে একটি রোবট। তাকে নকশা করা হয়েছে যাতে মানুষের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে ও শিখতে পারে এবং মানুষের সঙ্গে কাজকর্ম করতে পারে। তাছাড়া সাড়া বিশ্ব জুড়ে রোবট সোফিয়ার সাক্ষাৎকার নেয়া হয়েছে। সোফিয়ার উচ্চতা ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি।  ২০১৭ সালের অক্টবরে সৌদি আরব এর নাগরিকত্ব লাভ করে রোবট সোফিয়া। সোফিয়ায় প্রথম রোবট যে কোন দেশের নাগরিকত্ব অর্জন করেছে। সে সক্রিয় হয়েছে ২০১৫ সালের ১৯ এপ্রিলে। মানুষের মতো তৈরি করার জন্য সে অন্যান্য রোবটের থেকে আলাদা সোফিয়া। এটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পূর্ণ একটি রোবট। সে প্রকৃত তথ্যের উপক্রিয়াজাত করণ এবং মুখের বিন্যাস বা ফেশিয়াল রিকবনাইজেশন করতে পারে। মানুষের মুখের অঙ্গভঙ্গি এবং মুখের অভিভক্তি নকল করতে পারে। বিভিন্ন বিষয়ের উপর কথপোকথন চালাতে ও বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে। সোফিয়া এ্যালফাবেট Incoperative নামক কণ্ঠ প্রযুক্তি ব্যবহার করে এবং তাকে এমন ভাবে নকশা করা হয় যাতে সে সময়ের সাথে চালাক হতে পারে। সোফিয়া বুদ্ধিমত্তার Software নকশা করে সিঙ্গলারিনেটেড প্রতিষ্ঠান কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার কাজকর্ম, কথপোকথ এবং তথ্য প্রক্রিয়াজাত করে সেটি আগামীতে তার প্রক্রিয়াকে আরো উন্নত করবে। এটি অনেকটা Computer Program এ্যালিজার মতো। সেটি মানুষের মতো  কথপোকথননের প্রথম Computer গুলোর মধ্যে একটি। হ্যানসন সোফিয়াকে নকশা করেন যাতে এটি ঘরের পরিসেবা হিসেবে সঙ্গ দিতে পারে কিংবা কোন বড় অনুষ্ঠানে বা পার্কের ভিড়ের মধ্যে সহযোগীতা করতে পারে।

মানুষের চামড়ার মতোই সোফিয়ার গায়ের ত্বক। যা তৈরি করা হয়েছে সিলিকা দিয়ে। রোবট হলেও মুখে ৬২ ধরনের অভিব্যক্তি ফোটাতে পারে এবং মানুষের মতোই ভ্রু কুচকাতে পারে। মানুষের মতো দেখতে দাঁত ব্যবহার করে রাগ প্রকাশ করতে পারে। তার চোখে থাকা ক্যামেরায় সমস্ত কিছু দেখতে পারে। একজন থেকে অন্যজনকে পৃথক করতে পারে এবং চোখে চোখ রেখে কথা বলতে পারে। আপাদত তার মধ্যে দেয়া কৃতিম বুদ্ধিমত্তা এখনো সিনেমার রোবটদের মতো হয়ে ওঠে নি। তবে নির্দিষ্ট কোন বিষয়ে মানুষের সঙ্গে কথা চালিয়ে যেতে জুড়ি নেই রোবট সোফিয়ার। সোফিয়া ইংরেজি সহ অনেক ভাষায় কথা বলতে পারে। ২০১৭ সালে  ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে রোবট সোফিয়ার উপস্থিতি বেশ সাড়া জাগিয়েছে বাংলাদেশে এবং বঙ্গবন্ধ আন্তর্জাতিক কেন্দ্রে দেশের সব থেকে বড় তথ্যপ্রযুক্তি প্রদর্শীল ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সোফিয়ার সাথে সাক্ষাৎকার হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার।
তাছাড়া রোবট দ্বারা ঘরে, কর্মস্থলে রোবট দ্বারা বিভিন্ন কাজ করানোও হচ্ছে। রোবট নানা কাজে মানুষকে সহযোগিতা করছে। রোবটের মূল অংশ হচ্ছে Program এবং এটি এক প্রকার কম্পিউটার। এতে রয়েছে বিভিন্ন প্রকার যান্ত্রিক ব্যবস্থা।

বন্ধরা, উপরে আমরা রোবট সম্পর্কে আলোচনা করেছি। রোবটর সম্পর্কে যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্টে জানাবেন। ধন্যবাদ।            

Leave a Reply