ডোমেইন কি? ভালো ডোমেইন প্রভাইডার চিনবো কিভাবে?

বর্তমান যুগে ইন্টানেট ব্যবহার করে না বা ইন্টারনেট এর নাম শুনে নাই এমন মানুষ খুজেঁ পাওয়া খুবই দুষ্কর। আমার ইন্টারনেট যেটুকু সময়ই কাটাইনা কেনো সেটা কোন না কোন একটা ওয়েব সাইট। আর সেই ওযেবসাইট এর নিদির্ষ্ট একটা নাম আছে। যেটা কে বলে ডোমেইন। আজ আমরা এই পোষ্টে মধ্যে ডোমেইন এর নাড়ি-নক্ষত্র সব নিয়েই আলোচনা করবো। তাহলে চলুন শুরুেতেই টেবিল অফ কন্টেন্ট থেকে জেনে নিই আজকের আলোচনার বিষয় বস্তু গুলো:

ডোমেইন কি?

একদম সহজ কথায় বলতে গেলে বলেতে হয় ডোমেইন মুলতো একটি নাম। আপনার আমার যেমন নাম আছে ঠিক তেমনই একটি ওয়েবসাইট কে কি নামে ডাকবেন সেটাই হলো ডোমেইন। আরও সহজ ভাবে বলা যায়, আপনার নাম তাছিন। যদি আমি আপনাকে এই মানুষ এই মানুষ বলে ডাকি তাহলে আপনি শুনবেন না বা আমার ডাকে সারা দিবেন না। যখন আমি আপনাকে তাছিন নামেই ডাকবো ঠিক তখনই আপনি আমার ডাকে সারা দিবেন। তেমনই এটি ওয়েব সাইট যাতে তার ভিজিটর কে সারা দেয় আর সে জন্য তার যে নাম নির্ধারণ করা হয় সেটাই ডোমেইন।

কখন থেকে ডোমেইন এর ব্যবহার শুরু হলো?

এই প্রশ্নটার উত্তর দেওয়ার আগে যদি আমি আপনাকে জিজ্ঞাস করি আপনার নাম কি? তাহলে আপনি স্বভাবিক ভাবেই আপনার নাম বলবেন। মনে করে নিলাম আপনার নাম রিহাম এবং আপনি আপনার বাসা বগুড়ার উপশহরে।

এখন যদি আপনাকে কেউ প্রশ্ন করে আপনার নাম জানতে চায় এবং আপনি যদি তাকে উত্তর দেন “আমার বাসা বগুড়ার উপশহরে” তাহলে আপনার উত্তরটি কি যথাযথ হলো বা কেউকি আপনার পরিচয় সহজে পাবে বা বগুড়ার উপশহরে পৌছলেও সহজে আপনার বাসা খুজেঁ বের করতে পারবে? এখানে সম্ভব হলেও আপনার ঠিকানা যদি আরোও বড় হলে সেক্ষেত্রে কি আপনার বাসা বের করা সহজ হতো? এখানে আপনার মতামত বা উত্তরটি অবশ্যই না বোধক হবে।

ঠিক তেমনি একটি ডোমেইন হলো একটি নির্দিষ্ট সাইটের নাম। যার বাসার ঠিকানা হিসেবে ব্যবহার হয় IP Address. আইপি এড্রেস কি এবং কত প্রকার তা আমরা অন্য একটা পোষ্ট এ বিস্তারিত জানবো। একটি সাইটের IP এরই রকম হয় 72.11.134.186 আর এটা একজন মানুষের পক্ষে মনে রাখা কষ্টকর বিষয়। অন্যদিকে যে কোন কারনে একটা সাইটের IP পরিবর্তন হতেই পারে। এরফলে সেই সাইট টি আপনার আমার অতি পরিচিত হলেও সেটার ঠিকানা আমরা সহজেই হারিয়ে ফেলবো এবং এটাই স্বাভাবিক।

আর এই সমস্যার থেকে চিরতরে মুক্তি পারার জন্যই শুরু হয়ে ডোমেইন এর ব্যবহার। ক্যাম্ব্রিজের কম্পিউটার ফার্ম সিম্বোলিক্স ১৫ মার্চ ১৯৮৫ তারিখে সর্বপ্রথম বাণিজ্যিকভাবে ডোমেইন রেজিস্টার করে এবং উইকিপিডিয়ার মতে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ৩৩০.৬ মিলিয়ন ডোমেইন নেম রেজিস্টার হয়েছে।

তথ্যসূত্র: https://en.wikipedia.org/wiki/Domain_name

ডোমেইন কিভাবে কাজ করে?

একটি ডোমেইনকে কাজে লাগিয়ে একটি ওয়েবসাইট লাইভ করার জন্য একটি হোস্টিং এর প্রয়োজন। হেস্টিং কি তা আমরা পরবর্তীতে জানবো। ডোমেইন এবং হোস্টিং কানেক্ট করার জন্য ব্যবহার করা হয় নেমসার্ভার ও কিছু DNS Record. এই নেসমার্ভার এবং DNS এর পেছনে কাজ করে একটি IP Address. এই IP Address টি এমন ভাবে নেমসার্ভার এবং DNS এর সাথে কাজ করে যাতে কখনো IP Address পরিবর্তন হলেও সেটি ওযেবসাইট এর জন্য কোন ইফেক্ট ফেলবে না। ডোমেইন এর হোস্টিং সফলভাবে কানেক্ট হবার পর কোন ভিজিটর সেই ডোমেইন ভিজিট করলে ডোমেইন নেমসার্ভার এর কাছে কুয়েরি পাঠায় এবং নেমসার্ভারকে চিনিয়ে দেওয়া IP Address এর মাধ্যমে হোস্টিং সার্ভারে কুয়েরির মাধ্যমে ভিজিটর এর নিকট ডাটা ভিজিবল করে।

একটি সাইটের জন্য ডোমেইন কতটা জরুরি?

আপনার নাম যেমন আপনার পরিচয় ঠিক তেমনই আপনার ডোমেইন নেম অনলাইন জগতে আপনার পরিচয়। বর্তমানে অনেক অনলাইনে ব্যবসা করছে। এবং এটি খুবই সম্ভাবনাময়। তাই যে বিষয়ে বা যে কাজ এর জন্য ওয়েবসাইট তৈরী করতে চাচ্ছেন সেটা সেটার নাম নির্বাচন এর আগে একটু বেশি সতর্ক হবেন যাতে আপনার ডোমেইন নেমটিকে একটি ব্রান্ড নেমএ পরিচিত করানো যায় অর্থাৎ আপনার ডোমেইন নেমটি যেনো সহজে উচ্চরণ করা যায় এবং নামটা যেনো ছোট হয়।

ভালো ডোমেইন প্রভাইডার চিনবো কিভাবে?

ভালো ডোমেইন প্রভাইডার বলতে আমি অথেন্টিক ডোমেইন প্রভাইডারকে বুঝাইছি। এদের চিনতে হলে আপনাকে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে।

  • এরা কখনই অস্বাভাবিক কম দামে ডোমেইন সেল বা রেজিট্রেশন এর সুবিধা দিবে না।
  • এদের থেকেও আপনি কম দামে ডোমেইন রেজিট্রেশন করতে পারবেন। তবে তারা তাদের কোম্পানির প্রোমশনের জন্য দিয়ে থাকে।
  • এদের কাছে থেকে ডোমেইন অর্ডার করে পেমেন্ট করার সাথে সাথে একটিভ হয়ে যাবে।
  • এরা ডোমেইন এর সম্পূর্ণ কন্ট্রোল তাদের ড্যাসবোর্ড অর্থাৎ ক্লাইন্ট এরিয়া থেকেই করেতে পারবেন।

আমাদের দেশে এখন ডোমেইন হোস্টিং প্রভাইডারের অভার নেই। কিন্তু অভাব আছে অথেন্টিক ডোমেইন হোস্টিং প্রভাইডারের। আমাদের দেশের অধিকাংশ ডোমেইন প্রভাইডার godaddy, namecheap, 123reg এর মতো বড় ডোমেইন প্রভাইডারের ডোমেইন অফার অ্যাবিউজিং এর মাধ্যমে খুবই কম টাকায় ডোমেইন রেজিস্টার করে দেয়। যার ফলে যখন উক্ত অফারগুলো যাচাই বাছাই শুরু হয় তখন অনেক ডোমেইন সাসপেন্ড করে দেয়া হয়। এতে করে যারা এসব কালো বাজারির ফাদে পরে তারা তাদের মূল্যবান ডোমেইন টি হারান।

তাই এই সমস্যার থেকে মুক্তি পেতে অথেন্টিক ডোমেইন প্রভাইডারেদের থেকে আপনার ডোমেইন টি রেজিস্টার করুণ এবং আপনার ডোমেইন কে নিরাপদ রাখুন।

বাংলাদেশে কি অথেন্টিক ডোমেইন প্রভাইডার আছে?

হ্যাঁ, বাংলাদেশেও অথেন্টিক ডোমেইন প্রভাইডার আছে কিন্তু তাদেরকে একটু কষ্ট করে খুজে নিতে হবে। তবে আমি আপনার এই কাজটিকে আরও সহজ করে দিতে সন্ধান দিবো এমন এক ডোমেইন রেজিস্টার কোম্পানির যারা আপনাকে ন্যায্য দামে ডোমেইন রেজিস্টার এবং হোস্টিং এর সুবিধা। বর্তমানে IT Nut Hosting বিশ্বে বড় ২ টি ডোমেইন রেজিস্ট্রির Public Domain Registry (PDR) ও OwnRegistrar, Inc. এর পার্টনার হয়ে ডোমেইন রেজিস্টার সার্ভিস দিয়ে আসছে। তাই আপনি নিশ্চিন্তে এনাদের থেকে ডোমেইন রেজিস্টার করাতে পারেন।

Leave a Comment

Recommended
বিশ্ব জুড়ে Diabetes শব্দটি খুবই পরিচিত। প্রত্যেকটা স্থানে…
Cresta Posts Box by CP